রাজধানীতে ৭ ঘণ্টায় ১০ বাসে আগুন

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১২, ২০২০

দাবানল ২৪ ডেস্কঃ

ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণের সময় রাজধানীতে সাত ঘন্টায় ১০ বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে। যাত্রীবেশে বাসে উঠে দুর্বৃত্তরা এসব আগুন দেয়। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার মধ্যে রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন, শাহাজাহানপুর, শাহবাগ, ভাটারা, বংশাল ও উত্তরা থানা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অবশ্য এতে কেউ হতাহত হয়নি। ২০১৪-১৫ সালে দেশজুড়ে আগুন সন্ত্রাসের পর আবার একই কায়দায় বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটল। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের বিরোধিতা করে বিএনপি-জামায়াত জোট আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছিল। তারা সেসময় শত শত যানবাহন ভাংচুর করে সেগুলোতে আগুন ও পেট্টোল বোমা নিক্ষেপ করা হয়।

বৃহস্পতিবারে ঘটনার পর পুলিশ বলছে, বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত। রাজধানীকে উত্তপ্ত করার অপচেষ্টার অংশ হিসেবে আগুন দেওয়া হয়েছে। এদিকে বাসে অগ্নিসংযোগের প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন। এসব বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে নেতারা এই অগ্নিসংযোগ ও সন্ত্রাসের জন্য বিএনপিকে দায়ী করে বলেছেন, বিএনপি দেশকে অস্থিতিশীল এবং সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে চাইলে আওয়ামী লীগ জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাজপথে দাঁতভাঙা জবাব দেবে। অপরদিকে ঘটনার সঙ্গে বিএনপি কখনোই জড়িত নয় দাবি করেছে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এক বিবৃতিতে তিনি আগুনের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। আটক নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার দাবি করেন বিএনপি মহাসচিব।

ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, তারা সাতটি বাসের আগুন নিভিয়েছে। এ কারণে তাদের হিসাবে সাতটি বাসে আগুন দেওয়া হয়। এ ছাড়া মতিঝিলের পূবালী পেট্রোল পাম্পের সামনে বিআরটিসির একটি দোতলা বাস, উত্তরার আজমপুরে ও নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ের বিপরীতে আয়কর বিভাগের বাসে আগুনের তথ্য তাদের কাছে নেই। কারণ স্থানীয়রাই আগুন নিভিয়ে ফেলে।

পুলিশ জানিয়েছে, আয়কর বিভাগের গাড়িতে আগুনের ঘটনায় বিএনপির নয় নেতাকর্মীকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। আটককৃতদের মধ্যে বিএনপির ফরিদপুর বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাশুকুর রহমান মাশুক রয়েছেন বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার কিছু সময় আগে নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে হঠাৎ মিছিল করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। এর পরই বিএনপির কার্যালয়ের বিপরীতে পার্ক করা আয়কর বিভাগের বাসে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সাড়ে ১২টার দিকে বাসটিতে আগুন দেওয়া হয়। এতে বাসটির পেছনের গ্লাসসহ কয়েকটি সিট ক্ষতিগ্রস্ত হয়। স্থানীয়রা আগুন নিভিয়ে ফেলে। বাসটিতে আয়কর বিভাগের স্টাফরা যাতায়াত করতেন। সে সময় বাসে কোনো যাত্রী ছিলেন না। ১২টা ৩৫ মিনিটে মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হলের সামনে রাখা অগ্রণী ব্যাংকের স্টাফ বাসে আগুন দেওয়া হয়। বিকেল ৩টার দিকে মতিঝিলের পূবালী পেট্রোল পাম্পের সামনে বিআরটিসির দোতলা বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা।

ওই বাসের যাত্রীরা জানান, পেছনের সিটে হঠাৎ আগুন জ্বলে ওঠে। বাসটি থামিয়ে দেন চালক। এর পরই যাত্রীরা দ্রুত নেমে পড়েন। বাসের কোনো যাত্রী হতাহত হননি। দুপুর দেড়টার দিকে গুলিস্তানের গোলাপশাহ মাজার এলাকায় ভিক্টর ক্ল্যাসিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেওয়া হয়। সঙ্গে সঙ্গে চালক বাস থামিয়ে দিলে যাত্রীরা নেমে পড়েন। আশপাশের গাড়ির চালকরা আতঙ্কিত হয়ে দ্রুত তাদের গাড়ি টেনে চলে যান। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। বাসটিতে ১৮-২০ জন যাত্রী ছিলেন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভায়। বাসটি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দুপুর পৌনে ২টার দিকে কমলাপুরের শাহাজাহানপুর রোডে একটি, ২টার দিকে সচিবালয় এলাকায় রজনীগন্ধা পরিবহনের একটি, দেড়টার দিকে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের পশ্চিম পাশে দেওয়ান পরিবহনের একটি, আড়াইটার দিকে বংশালের নয়াবাজারে দিশারী পরিবহনের একটি এবং বিকেল সাড়ে ৪টায় ভাটারার কোকা-কোলা মোড়ে ভিক্টর পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেওয়া হয়।

আজিজ সুপার মার্কেটের পশ্চিম পাশের আগুনের ঘটনায় কয়েক যাত্রী জানান, হঠাৎ তারা বাসের মধ্যে আগুন দেখতে পান। যাত্রীরা দ্রুত নেমে পড়ায় কেউ হতাহত হননি। ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিভিয়ে ফেলে। বাসটির পুরো অংশ পুড়ে গেছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উত্তরার আজমপুরে আরও একটি বাসে আগুন দেওয়া হয়। গতকাল সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত এসব ঘটনায় মামলা হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ সমকালকে বলেন, কয়েক ঘণ্টার মধ্যে নয়টি বাসে আগুনের ঘটনা পরিকল্পিত। ২০১৪-১৫ সালের মতো আবার বাসে আগুন সন্ত্রাস শুরু হয়েছে। তখনও যাত্রীবেশে বাসে উঠে আগুন লাগানো হতো। বৃহস্পতিবারও একইভাবে বাসে আগুন লাগানো হয়েছে। দেশে বিশৃঙ্খলা করার অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তিনি। একই সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত মালিকদের ক্ষতিপূরণ এবং সড়কে গাড়ি চলাচলে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দাবি করেন মালিক সমিতির এই নেতা।

পল্টন থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, বিএনপি কার্যালয়ের বিপরীতে পার্ক করা আয়কর বিভাগের বাসে আগুনে পাঁচ মিনিট আগেই সংগঠনটির নেতাকর্মীরা মিছিল বের করে। এর পরই বাসে আগুন দেওয়া হয়। এ ঘটনায় নয়জনকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে তাদের যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন সমকালকে বলেন, দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে কোনো মহল পূর্বপরিকল্পিতভাবে বাসে আগুন দিয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, যাত্রীবেশে বাসে উঠে আগুন লাগানো হয়েছে। কারা এর সঙ্গে জড়িত তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কয়েকটি ঘটনাস্থলের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পাওয়া গেছে। সেগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে।