ঝালকাঠিতে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

রবিবার, অক্টোবর ১৭, ২০২১

ঝালকাঠিতে পুকুরে ডুবে তায়েবা আক্তার নামে দুই বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার দুপুরে পৌর এলাকার বাসন্ডা কায়েদ সরণিতে এ ঘটনা ঘটে। সে ওই এলাকার মো. বাপ্পির মেয়ে। শিশুটির স্বজনেরা চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ এনে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগে বিক্ষোভ করেছেন।

ওই শিশুর স্বজনেরা বলেন, আজ দুপুরে মা ডলিয়া বেগম ও বাবা মো. বাপ্পির সঙ্গে পার্শবর্তী আবুল হোসেনের বাড়িতে বিয়ের দাওয়াত খেতে যায় শিশু তায়েবা। বেলা দেড়টার দিকে মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে দিশেহারা হয়ে যায় ডালিয়া। পরে ওই বাড়ির পুকুরে ভেসে থাকতে দেখে এলাকাবাসী শিশুটিকে উদ্ধার করে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

কর্তব্যরত চিকিৎসক বেলা দুইটায় শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে শিশুটিকে বাসন্ডা এলাকার গাউসুল আযম দরবার সড়কের বাড়িতে নিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পরে শিশুটি খিঁচুনি দেয় এবং চোখ মেলে তাকায়। স্বজনেরা আবারও শিশুটিকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। ততক্ষণে হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক পরিবর্তন হয়। সেই চিকিৎসক রোগীর স্বজনদের জানান, ৩০ মিনিট আগে শিশুটি মারা গেছে।

এরপর উত্তেজিত এলাকাবাসী ও স্বজনেরা হাসপাতালে বিক্ষোভ করেন।

বিক্ষোভকারীরা চিকিৎসকের বিরুদ্ধে চিকিৎসার অবহেলার অভিযোগ করেন। হাসপাতালে উপস্থিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মালা বেগম পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। পরে শিশুটিকে অ্যাম্বুলেন্স করে বরিশাল শের-ই–বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান স্বজনেরা। সেখানে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করার পর বিকেল পাঁচটায় তাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন স্বজনেরা।

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাসিবুর রহমান বলেন, ‘বেলা সোয়া তিনটায় বাচ্চাটিকে হাসপাতালে আনা হয়। তার আনুমানিক ৩০ মিনিট আগেই বাচ্চাটি মারা গেছে। আমি অক্সিজেন দিয়ে চেষ্টা করেছি। এর আগে বেলা দুইটায় যখন আনা হয়েছিল, তখন আমার দায়িত্ব ছিল না।’