নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ৫, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
একজনের শরীরের সঙ্গে অন্যজনের শরীরে মেশানো। বুথের বাইরে টিকা গ্রহীতাদের উপচে পড়া ভীড়।

দীর্ঘ লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে আছেন নানা বয়সী মানুষ। লাইনে দাঁড়ানো লোকদের গা ঘেঁষে হেঁটে যাচ্ছেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীর স্বজনরা। ভ্যাকসিন গ্রহীতার ভিড় সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবকরা।

বৃহস্পতিবার ( ৫ অক্টোবর ) সকালে নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভ্যাকসিন বুথের সামনে টিকা গ্রহীতাদের এই চিত্র দেখা যায়।

টিকা গ্রহীতারা বলছেন সকাল থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি।ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়েও টিকা দিতে পারিনি। এখানে বসার জায়গা নেই, দাঁড়িয়ে আমাদের খুব কষ্ট হয়ে যাচ্ছে। একটু পানির ব্যবস্থা নেই এখানে। আবার স্বাস্থ্যবিধিও মানছে না কেউ।

টিকা নিতে আসা ইমন বলেন সকাল থেকে লাইনে দাঁড়িয়েছি।দাঁড়িয়ে খুব খারাপ অবস্থা আমাদের।

টিকা নিয়ে বের হওয়া রহিমা বেগম বলেন দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে টিকা দিতে পেরেছি। এজন্য সবাইকে ধন্যবাদ।

লাইনে দাঁড়ানো একাধিক গ্রহীতারা জানান , এতো অব্যবস্থাপনা চিন্তা করা যায় না। সবাইকে এক জায়গায় এনে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন না করে স্বাস্থ্য বিধি মেনে টিকা দেওয়ার দাবি জানান তারা।

৯.৩০ মিনিটে হাসপাতালে আসেনি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা

মিজান ও তামিম নামে দুই ব্যক্তি বলেন, সবাই মাস্ক পরা থাকলেও সামাজিক দূরত্ব নেই আমাদের মধ্যে। কেউ কেউ বারবার মাস্ক খুলছেন এবং লাগাচ্ছেন। এক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি তো রক্ষা হচ্ছেই না, আবার যদি কারও মধ্যে করোনা ভাইরাস সুপ্ত অবস্থায় থাকে সেক্ষেত্রে অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কেউ কেউ বলছে সিরিয়াল ব্রেক করেও লোক প্রবেশ করানো হচ্ছে টিকা দান বুথে। সেখানো মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।

এছাড়াও অনেকের অভিযোগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সর নমুনা সংগ্রহের বুথ থাকা সত্বেও সেখানে নমুনা সংগ্রহ না করে হাসপাতালের ভিতরে নমুনা সংগ্রহ করা হয়।এতে অনেকেই আতংকে রয়েছেন।

এবিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.শিউলি পারভীনের সাথে যোগাযোগ করতে গেলে সকাল সাড়ে ৯টায় তাকে অফিসে পাওয়া যায়নি।