সাংবাদিকের ওপর মেম্বারের হামলার ঘটনায় মামলা, ৩ দিনেও আটক হয়নি কেউ

শুক্রবার, জুলাই ২৩, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক//
ঝালকাঠির নলছিটিতে এক সাংবাদিকের ওপর হামলায় ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। তবে মামলার পর তিনদিন পেরিয়ে গেলেও কোন আসামিকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এরআগে গত ১৮ জুলাই রাতে উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য (মেম্বার) মো. সাইফুল আকন দলবল নিয়ে ওই সাংবাদিকের ওপর হামলা চালিয়ে তাকে গুরুতর আহত করে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, পূর্বশত্রুতার জের ধরে গত ১৮ জুলাই রাত ১০টার দিকে উপজেলার খেজুরতলা বাজার সংলগ্ন এলাকা দিয়ে যাওয়ার পথে দলবল নিয়ে ওই মেম্বার আঞ্চলিক দৈনিক দখিনের সময় পত্রিকার নলছিটি প্রতিনিধি অহিদুল ইসলাম মিথুনের পথরোধ করেন। অতর্কিতভাবে তারা লোহার রড, হাতুড়ি ও লাঠিসোটা দিয়ে মিথুনের ওপর হামলা চালিয়ে তাকে গুরুতর জখম করেন। একপর্যায় মেম্বার সাইফুল আকন তার বুকের ওপর উঠে গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যার চেষ্টা চালান। আহত মিথুনের ডাকচিৎকারে স্থানীয় ছুটে এলে তার প্যান্টের পকেটে থাকা কোরবানি গরু কেনার নগদ ৯০ হাজার টাকা নিয়ে ওই মেম্বার দলবল নিয়ে সটকে পড়েন। পরে স্থানীয়রা সাংবাদিক মিথুনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় মিথুন বাদি হয়ে গত ২০ জুলাই মেম্বার সাইফুল আকনকে প্রধান আসামি করে নলছিটি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলেন, উপজেলার জুরকাঠি গ্রামের নাসির মৃধার ছেলে রিয়াজ মৃধা ও নাঈম মৃধা, জব্বার মৃধার ছেলে এমদাদুল হক রুবেল, দুধারিয়া গ্রামের ইউসুফ আলি হাওলাদারের ছেলে রাকিব হাওলাদার, বাকেরগঞ্জ উপজেলার বাখরকাঠি গ্রামের খালেক হাওলাদারের ছেলে জুলহাস হাওলাদার। এ মামলায় আরো ৬-৭ জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকেও আসামি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নলছিটি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এইচ.এম মাহমুদ বলেন, আসামিদের আটকের জন্য অভিযান চলছে।