বাংলাদেশ, ১লা জুন, ২০২০ ইং। সর্বশেষ আপডেট: ৫০ মিনিট আগে
সর্বশেষ
  ||> রক্তযোদ্ধাদের সংগঠন প্রতিক্ষনের ভিন্নধর্মী প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন  ||> PBRB-এর ১২ তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে পটুয়াখালী জেলার বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি  ||> করোনা তহবিলে ঈদ সালামির টাকা দান করলেন জুই  ||> মাস্ক না পরে বের হলেই ছয় মাসের কারাদণ্ড বা লাখ টাকা জরিমানা  ||>   ||> হাতীবান্ধায় পরিক্ষায় ফেল করায় আত্মাহত্যা ১ ছাত্রীর  ||> খুলনা রেঞ্জের ১০ টি জেলার সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাসিক অপরাধ সভা অনুষ্ঠিত।  ||>   ||> অনলাইন পত্রিকাগুলো করোনাকালে দায়িত্বশীল ভুমিকা রাখছে  ||> ঝালকাঠিতে ছাগলে গাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে বৃদ্ধকে লাঞ্ছিত, যুবককে গণধোলাই  ||>   ||> ঝালকাঠিতে উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিস কেয়ারটেকার সন্ত্রাসি হামলার শিকার  ||> রেকর্ড ৪০ জনের মৃত্যু করোনায়, নতুন শনাক্ত ২৫৪৫  ||> কাল থেকে এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন শুরু  ||> এসএসসি-সমমানে পাসের হার ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ  ||> আয়োজিত হতে যাচ্ছে প্রতিক্ষণ ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশ এর ১১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী  ||> আদর্শ ছাত্র বন্ধু ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক নিয়োগ পেলেন পরিমল চন্দ্র বসুনিয়া  ||> ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় আম্ফানে ভাঙ্গন কবলিত বিষখালী নদীর তীরে বেড়িবাঁধ নির্মানণর দাবীতে মানববন্ধন  ||> ঝালকাঠির রাজাপুরে বিয়ের প্রলোভনে অর্থ আত্মসাতকারী প্রতারক চক্রের সদস্য মা-মেয়েকে আটক করেছে ব্যার-৮  ||> করোনার মধ্যে সাধারণ সভা করবে ঝালকাঠি সিটিক্লাব

Dabanol 24


ড্রাগন ফল চাষে ভাগ্য বদল

ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯ ৬:২৪ অপরাহ্ণ

পার্বত্য জেলা বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড় এলাকার বসন্তপাড়ার চাষী তোয়া ম্রো। ২০১৬ সালে বান্দরবানের হর্টিকালচার থেকে মাত্র ৩ শত ড্রাগন ফলের চারা লাগিযে পান সফলতা। স্বল্প খরচে বেশি ফলনের কারনে তিন একর জমিতে এখন গাছের সংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি। আঠারো মাসের ব্যবধানে দুটি মৌসুমে আয় করেছেন আঠারো লাখ টাকা।

তিন পার্বত্য জেলাতে সফল ড্রাগন চাষী হিসেবে ইতোমধ্যে সুনাম কুঁড়িয়েছে এই চাষী। পাহাড়ের দীর্ঘ দুর্র্গম পথ পাড়ি দিয়ে প্রতিদিন কষ্ট করে ফলাচ্ছে বিদেশি ফল ড্রাগন। বাগানের প্রতি কেজি ড্রাগন ফল বিক্রি করছেন চারশত- সাড়ে চারশত টাকা। তোয়ের দেখাদেখি অনেকে ড্রাগন চাষে উৎসাহিত হচ্ছেন। ইতোমধ্যেই বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়, বালাঘাটা, কুহালং, রোয়াংছড়ি, নাইক্ষংছড়ি,রুমাসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলাতে ব্যাপকভাবে চাষ হচ্ছে এই ড্রাগনের। উৎপাদন ও ভালো হওয়ায় লাভবান হচ্ছে চাষিরা, গুণছেন মোটা অংকের টাকা ,ফলে অন্য চাষিরা ও নিজস্ব জায়গা জমিতে ড্রাগন ফল চাষের দিকে ঝুঁকছে।

কৃষি বিভাগ জানায়, সব ধরনের মাটিতে ড্রাগন চাষ হয়। তবে উঁচু জমিতে ভালো ফলন পাওয়া যায়। তিন মিটার পরপর গর্ত করে চারা রোপণ করতে হয়। বছরের যেকোনো সময় চারা রোপণ করা যায়। তবে এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে হলে ভালো। সিমেন্ট অথবা বাঁশের খুঁটিতে গাছ বেঁধে দিতে হয়। গাছে ফুল আসার ২০-২৫ দিনের মধ্যে ফল ধরে। প্রতিটি ফলের ওজন হয় ২০০-৬০০ গ্রাম। ১২-১৮ মাস বয়সী একটি গাছে ৫-২০টি ফল ধরে। পরিপক্ব একটি গাছে সর্বোচ্চ ৮০টি ফল পাওয়া যায়। ছাদবাগানের টবেও ড্রাগন ফল উৎপাদন করা যায়।

এদিকে, জেলায় দিন দিন ড্রাগন ফলের আবাদ বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকারী ব্যবসায়ীরা বাগান থেকেই এই ড্রাগন ফল ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।

কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা মোহাম্মদ ওমর ফারুক জানান, এই ড্রাগন ফলের রয়েছে নানান গুন ,আর স্বল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় বান্দরবানে দিন দিন এই ফলের আবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

অল্প খরচে বেশি লাভ হওয়াই পার্বত্য জেলা বান্দরবানে বাড়ছে বিদেশী ফল ড্রাগনের চাষাবাদ, সরকারী বেসরকারি বিভিন্ন সহযোগিতা পেলে এই ড্রাগন ফলের চাষাবাদ আরো বাড়বে বলে মনে করেন স্থানীয় চাষীরা।

পাঠকের মতামত:

[wpdevart_facebook_comment facebook_app_id="322584541559673" curent_url="" order_type="social" title_text="" title_text_color="#000000" title_text_font_size="22" title_text_font_famely="monospace" title_text_position="left" width="100%" bg_color="#d4d4d4" animation_effect="random" count_of_comments="3" ]