বাংলাদেশ, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং। সর্বশেষ আপডেট: ২২ ঘন্টা আগে
সর্বশেষ
  ||> শিশুদের মাঝে সিটিজেন ফাউন্ডেশনের শিক্ষা উপকরণ বিতরণ  ||> ঝালকাঠিতে ধর্ষণের দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড  ||> র‌্যাবের অভিযানে প্যানেল চেয়ারম্যানসহ ৮ মাদক ব্যবসায়ী আটক  ||> মাহফিলের পর আটক হলেন ইসলামি বক্তা আব্দুল্লাহ্ আল আমিন  ||> গরু কচুরিপানা খেতে পারলে আমরা পারব না কেন : পরিকল্পনামন্ত্রী  ||> অবৈধ পাসপোর্ট করার চেষ্টায় এক রোহিঙ্গা আটক  ||> মেট্রোরেল এখন ঢাকায়  ||> গার্মেন্টস কারখানায় নামাজ বাধ্যতামূলক!  ||> লিটন তালুকদারের কাব্যগ্রন্থ বাসযোগ্য একখন্ড জমিচাই  ||> মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা আবদুস সুবহানের মৃত্যু  ||> ঝালকাঠিতে ‘গরীবের বন্ধু’ সংগঠনের ভিন্নধর্মী আয়োজনে বর্ষপুর্তি পালন  ||> নকলের দায়ে নলছিটিতে ৫ পরীক্ষার্থী বহিষ্কার  ||> মুজিববর্ষে নির্মান করা হচ্ছে জাতির পিতার ম্যুরাল চিত্র ঝালকাঠি পৌরমেয়রের ভিন্নধর্মী আয়োজন  ||> একুশে বই মেলায় প্রকাশ পাচ্ছে রিজভীর প্রথম গ্রন্থ ঢাকার উন্নয়নে নবাবের ভূমিকা  ||> বেতন কর্তনের আদেশের পর সাক্ষী এলেন আদালতে  ||> আবারো মন্ত্রী হচ্ছেন আমু  ||> আবারো মন্ত্রী হচ্ছেন আমু  ||> নলছিটির তালতলা বাজারে চুরির ঘটনায় আতঙ্কিত ব্যবসায়ীরা  ||> নলছিটিতে ইভটিজিং, যুবক'র কারাদণ্ড  ||> বিএমএসএফ কেন্দ্রীয় সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলটকে হুমকিদাতা গ্রেফতার

Dabanol 24


ড্রাগন ফল চাষে ভাগ্য বদল

ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯ ৬:২৪ অপরাহ্ণ

পার্বত্য জেলা বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড় এলাকার বসন্তপাড়ার চাষী তোয়া ম্রো। ২০১৬ সালে বান্দরবানের হর্টিকালচার থেকে মাত্র ৩ শত ড্রাগন ফলের চারা লাগিযে পান সফলতা। স্বল্প খরচে বেশি ফলনের কারনে তিন একর জমিতে এখন গাছের সংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি। আঠারো মাসের ব্যবধানে দুটি মৌসুমে আয় করেছেন আঠারো লাখ টাকা।

তিন পার্বত্য জেলাতে সফল ড্রাগন চাষী হিসেবে ইতোমধ্যে সুনাম কুঁড়িয়েছে এই চাষী। পাহাড়ের দীর্ঘ দুর্র্গম পথ পাড়ি দিয়ে প্রতিদিন কষ্ট করে ফলাচ্ছে বিদেশি ফল ড্রাগন। বাগানের প্রতি কেজি ড্রাগন ফল বিক্রি করছেন চারশত- সাড়ে চারশত টাকা। তোয়ের দেখাদেখি অনেকে ড্রাগন চাষে উৎসাহিত হচ্ছেন। ইতোমধ্যেই বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়, বালাঘাটা, কুহালং, রোয়াংছড়ি, নাইক্ষংছড়ি,রুমাসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলাতে ব্যাপকভাবে চাষ হচ্ছে এই ড্রাগনের। উৎপাদন ও ভালো হওয়ায় লাভবান হচ্ছে চাষিরা, গুণছেন মোটা অংকের টাকা ,ফলে অন্য চাষিরা ও নিজস্ব জায়গা জমিতে ড্রাগন ফল চাষের দিকে ঝুঁকছে।

কৃষি বিভাগ জানায়, সব ধরনের মাটিতে ড্রাগন চাষ হয়। তবে উঁচু জমিতে ভালো ফলন পাওয়া যায়। তিন মিটার পরপর গর্ত করে চারা রোপণ করতে হয়। বছরের যেকোনো সময় চারা রোপণ করা যায়। তবে এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে হলে ভালো। সিমেন্ট অথবা বাঁশের খুঁটিতে গাছ বেঁধে দিতে হয়। গাছে ফুল আসার ২০-২৫ দিনের মধ্যে ফল ধরে। প্রতিটি ফলের ওজন হয় ২০০-৬০০ গ্রাম। ১২-১৮ মাস বয়সী একটি গাছে ৫-২০টি ফল ধরে। পরিপক্ব একটি গাছে সর্বোচ্চ ৮০টি ফল পাওয়া যায়। ছাদবাগানের টবেও ড্রাগন ফল উৎপাদন করা যায়।

এদিকে, জেলায় দিন দিন ড্রাগন ফলের আবাদ বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকারী ব্যবসায়ীরা বাগান থেকেই এই ড্রাগন ফল ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।

কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা মোহাম্মদ ওমর ফারুক জানান, এই ড্রাগন ফলের রয়েছে নানান গুন ,আর স্বল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় বান্দরবানে দিন দিন এই ফলের আবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

অল্প খরচে বেশি লাভ হওয়াই পার্বত্য জেলা বান্দরবানে বাড়ছে বিদেশী ফল ড্রাগনের চাষাবাদ, সরকারী বেসরকারি বিভিন্ন সহযোগিতা পেলে এই ড্রাগন ফলের চাষাবাদ আরো বাড়বে বলে মনে করেন স্থানীয় চাষীরা।

Facebook Comments

পাঠকের মতামত: