বাংলাদেশ, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ ইং। সর্বশেষ আপডেট: ৫ ঘন্টা আগে
সর্বশেষ
  ||> ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় বিষখালী নদীর চরে ১ যুবকের মরদেহ উদ্ধার  ||> বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির রোল মডেল - আমির হোসেন আমু  ||> ঝালকাঠি জিডি নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া  ||> মেসার্স জিসান এন্টারপ্রাইজের ষ্টাফের উপর সন্ত্রাস হামলা  ||> জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে খেলাধুলার প্রতি খুবই আগ্রহি ছিলেন-এমপি শাওন  ||> ঝালকাঠিতে বরিশাল রেঞ্জ ডিআইজি'র পূজা মন্ডব পরিদর্শন  ||> সম্প্রীতির এই বাংলাদেশে করোনা সংকটেও থেমে নেই উৎসবের আমেজ  ||> জাগুয়া ইউনিয়নের খয়ের দিয়া'র ৫ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য পদপ্রার্থী লালচান হোসেন  ||> নলছিটির তালতলা পূজা মন্ডবে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধক সামগ্রী বিতরণ  ||> রাজাপুরের শুক্তাগড় ইউনিয়নের বিভিন্ন পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন আ.লীগ নেত্রী বিউটি সিকদার  ||> দুই ঘন্টা পর এলেন সবুজ পরী  ||> সাতক্ষীরায় খাদ্য অধিকার আইন প্রণয়নের দাবিতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত  ||> করোনা সংকটকালে যারা সরকার পরিবর্তনের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত জনগণের বন্ধু হতে পারে না -এমপি শাওন  ||> লালমনিরহাটে মাঠে মাঠে দুলছে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন  ||> ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক  ||> প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক এর মৃত্যুতে আমির হোসেন আমুর শোক  ||> ঝালকাঠিতে পূজা মন্ডপে অনুদান দিলেন পৌর মেয়র লিয়াকত তালুকদার  ||> বৃষ্টি ঝরিয়ে কাটল নিম্নচাপ  ||> মাদক ইভটিজিং সন্ত্রাস মুক্ত সমাজ গড়তে খেলাধুলার বিকল্প নেই -এমপি শাওন  ||> আমির হোসেন আমু এম পি র পক্ষ থেকে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় শুভেচ্ছা

Dabanol 24


দেশের ৬৯১২ স্থানে একযোগে ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ করল পুলিশ

অক্টোবর ১৭, ২০২০ ১০:৩১ অপরাহ্ণ

দাবানল ২৪ ডেস্ক::

ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে ব্যতিক্রমী কর্মসূচি পালন করেছে পুলিশ। শনিবার দেশের ৬ হাজার ৯১২টি এলাকায় পুলিশের উদ্যোগে একযোগে ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সংশ্নিষ্ট জেলা ও থানার পুলিশ কর্মকর্তারা ছাড়াও জনপ্রতিনিধি, শিক্ষার্থী ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের লোকজন অংশ নেন। এই সমাবেশ থেকে ধর্ষণ ও নির্যাতন বন্ধে সামাজিক সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি অপরাধ রোধে পুলিশকে দ্রুত তথ্য দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিওচিত্র ভাইরাল হওয়ার পর এ নিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মানুষ প্রতিবাদমুখর হয়ে ওঠে। এরমধ্যেই বিভিন্ন এলাকায় ধর্ষণ ও সংঘবদ্ধ ধর্ষণের খবর আসে গণমাধ্যমে। এসব ঘটনার প্রতিবাদে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন সংগঠন ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে। পুলিশের পক্ষ থেকেও সারাদেশে সচেতনতামূলক এই কর্মসূচি পালিত হলো।

পুলিশ সদরদপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) মো. সোহেল রানা বলেন, শনিবার সকাল ১০টা থেকে সারাদেশে পুলিশের ৬ হাজার ৯১২টি বিটে একযোগে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পুলিশের বিট পুলিশিং কেন্দ্রগুলোর নিজ নিজ ফেসবুক পেজ থেকে এ সমাবেশ সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

তিনি বলেন, এই সমাবেশে সারাদেশে লাখ লাখ নারী-পুরুষ সশরীরে উপস্থিত ছিলেন এবং কোটি কোটি দর্শক ও সাধারণ মানুষ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমাবেশের কার্যক্রম দেখেছেন। ধর্ষণসহ নারী ও শিশু নির্যাতনবিরোধী সচেতনতা সৃষ্টিতে পুলিশের এ উদ্যোগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

পুলিশ জানায়, সারাদেশ ছাড়াও ঢাকার ৫০ থানা এলাকায় অন্তত ৩০০ স্থানে ধর্ষণবিরোধী এ সমাবেশ হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় শাহবাগ থানা আয়োজিত সমাবেশে পুলিশের রমনা বিভাগের ডিসি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ধর্ষকদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। ধর্ষণ প্রতিরোধে পুলিশ তৎপর আছে। তবে এই অপরাধ ঠেকাতে সামাজিক সচেতনতা দরকার।

শাহবাগ থানার ওসি মামুন-অর-রশীদের সঞ্চালনায় ওই সমাবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আবদুর রহিম বলেন, ইতোমধ্যে ধর্ষণের আইন সংশোধন করে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করা হয়েছে। একটি মামলায় এরই মধ্যে ৫ জনের ফাঁসির রায়ও হয়েছে। এতে আমাদের মধ্যে আশার সঞ্চার করেছে। শিক্ষক হিসেবে আমরা বিবৃতি, বক্তব্যের মাধ্যমে জনমত সৃষ্টিতে কাজ করব।

সমাবেশে অংশ নিয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ধর্ষণের সঙ্গে যারা জড়িত তারা যে দলেরই হোক, তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে। ধর্ষকরা নিকৃষ্ট। সামাজিকভাবে তাদের বয়কট করলে সমাজ থেকে এ ধরনের অপরাধ কমবে।

এদিকে তেজগাঁওয়ের বিভিন্ন এলাকায় ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে পুলিশ ছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা অংশ নেন।

পুলিশ সদরদপ্তর জানিয়েছে, সারাদেশে একযোগে অনুষ্ঠিত সমাবেশে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি, নারী ও শিশু অধিকার কর্মী, স্থানীয় নারী ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশে তারা ধর্ষণসহ যেকোনো ধরনের নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে সমাজের সবস্তরের মানুষের মধ্যে ব্যাপক গণজাগরণ সৃষ্টি করতে এবং নির্যাতিত নারী ও শিশুর পাশে থাকতে সবাইকে আহ্বান জানান।

সমাবেশগুলোতে ‘নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বন্ধ করি, নারীবান্ধব দেশ গড়ি’, ‘বন্ধ হোক নারী নির্যাতন, নিশ্চিত হোক দেশের উন্নয়ন’- এমন সচেতনতামূলক বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে নারী-পুরুষ অংশ নেন।

পাঠকের মতামত:

[wpdevart_facebook_comment facebook_app_id="322584541559673" curent_url="" order_type="social" title_text="" title_text_color="#000000" title_text_font_size="22" title_text_font_famely="monospace" title_text_position="left" width="100%" bg_color="#d4d4d4" animation_effect="random" count_of_comments="3" ]