বাংলাদেশ, ১০ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং। সর্বশেষ আপডেট: ২ ঘন্টা আগে
সর্বশেষ
  ||> জয় বাংলাকে জাতীয় শ্লোগান হিসেবে ব্যবহার করতে হবে: হাইকোর্ট  ||> ঝালকাঠীর ঠিকাদার মেকার আলম 'র বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি।  ||> ঝালকাঠীর ঠিকাদার মেকার আলম 'র বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি।  ||> ঝালকাঠিতে জাটকা ইলিশসহ যাত্রীবাহী বাস আটক, চালক ও হেলপারকে দণ্ড  ||> ঝালকাঠিতে শ্রেষ্ঠ ‘জয়িতা’ শারমিন মৌসুমি কেকা  ||> আলোকিত ঝালকাঠি’র বিশেষ মুদ্রিত সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করলেন আমির হোসেন আমু  ||> ঝালকাঠি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত:সভাপতি আঃ রশিদ সম্পাদক হাফিজ আল মাহমুদ  ||> ঝালকাঠি জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির শ্রেষ্ঠ সভাপতি এইচ এম মাসুম বিল্লাহ  ||> কুরআনকে মিথ্যা প্রমাণ করতে গিয়ে নিজেই ইসলাম গ্রহণ করলেন কানাডার অধ্যাপক মিলার!  ||> বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর, সম্পাদক সাদিক  ||> পোনাবালিয়া ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মজিবুর রহমান ও সম্পাদক হাকিম গাজী  ||> নলছিটিতে ইউ আর সি ইন্সট্রাকটরের বদলীর প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ  ||> ঝালকাঠিতে ‘ধিক্কার দিবস’ পালিত  ||> আ’লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে রণক্ষেত্র সিরাজগঞ্জ, পুলিশসহ আহত ৪০  ||> বরিশালে ট্রিপল মার্ডারের ঘটনায় মামলা  ||> ছাত্রলীগ থেকে বাদ পড়ছেন অন্তত ৪০ নেতা  ||> ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর প্রহর গুনছে তালতলীর শিশু সানাউল টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছে না  ||> ঝালকাঠি ও নলছিটি হানাদার মুক্ত দিবস আজ  ||> বিজয় দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে ঝালকাঠি নাগরিক ফোরামের প্রস্তুতি সভা  ||> বানারীপাড়ায় ৩ জনের লাশ উদ্ধার

Dabanol 24


বার কাউন্সিল পরীক্ষা প্রস্তুতি ২০১৯ (পর্ব-১৭)

সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯ ২:৪৪ অপরাহ্ণ

বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি- ধারা-৮৯ক-৮৯ঙ

২০০৩ সালে দেওয়ানী কার্যবিধি, ১৯০৮ সংশোধন করার মাধ্যমে দেওয়ানী মোকদ্দমায় বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির ধারণা (ধারা ৮৯ক এবং ৮৯খ) যোগ করা হয়। তখন এই বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি কেবল মূল মোকদ্দমার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ছিলো।

পরবর্তীতে ২০০৬ সালে দেওয়ানী কার্যবিধিতে আবার সংশোধনীর মাধ্যমে ৮৯গ যোগ করা হয়, ফলে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি আপীল পর্যায়ে করার সুযোগ হয়।

অতঃপর, ২০১২ সালে দেওয়ানী কার্যবিধির বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির বিষয়ে নতুন দুটি ধারা (৮৯ঘ এবং ৮৯ঙ) যোগ করা হয় এবং পূর্বের ধারাসমূহের (৮৯ক-৮৯গ) সংশোধনী আনা হয়। ২০১২ সালের সংশোধনীতে ৮৯ক ধারা ১ উপধারা এবং ৮৯গ ধারার ১ উপধারা সংশোধন করে মূল মোকদ্দমা এবং আপীলের ক্ষেত্রে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তিকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

সর্বশেষ, ২০১৭ সালের ২৫ জানুয়ারিতে আইনগত সহায়তা আইন, ২০০০ এর ২১ক ধারার অধীন লিগ্যাল এইড অফিসারের নিকট বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধ নিষ্পত্তির ক্ষমতাকে ব্যবহার উপযোগী করা জন্য দেওয়ানী কার্যবিধির ৮৯ক ধারাতে সংশোধনী আনা হয়।

বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির পন্থাসমূহ-

দেওয়ানী কার্যবিধি অনুযায়ী দুইটি পন্থাতে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি করা হয়ে থাকে-
ক. মধ্যস্থতা;
খ. সালিসী।

ক. মধ্যস্থতা-

মধ্যস্থতা আবার দুইটি পর্যায়ে হয়ে থাকে-
১. মূল মোকদ্দমা (ধারা-৮৯ক);
২. আপীল (ধারা-৮৯গ)।

১. মূল মোকদ্দমায় মধ্যস্থতা-(ধারা-৮৯ক)

মূল মোকদ্দমার ক্ষেত্রে মধ্যস্থার বিধান সমূহ সংক্ষেপে নিম্নে দেওয়া হল-
* এই কার্যবিধির অধীন মধ্যস্থতার বিধান অর্থঋণ আদালত আইন, ২০০৩ এর জন্য প্রযোজ্য নয়। অর্থঋণ আদালত আইন, ২০০৩ এ বিশেষ মধ্যস্থতার বিধান আছে (ধারা ২১-২৫)।
* ২০১২ সালের সংশোধনীর পর আদালত বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য পাঠাতে বাধ্য।
* মধ্যস্থতার ফি পক্ষগণ নির্ধারণ করবে। পক্ষগণ ফি নির্ধারণে ব্যর্থ হলে, আদালত নির্ধারণ করে দিবে এবং সেটা পক্ষগণের উপর বাধ্যকর হবে।
* পক্ষগণ মধ্যস্থতার আদেশ প্রদানের ১০ (দশ) দিনের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী নিয়োগ করবে। উক্ত উক্ত সময়ের মধ্যে নিয়োগে ব্যর্থ হলে, আদালত পরবর্তী ৭ দিনের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী নিয়োগ করবেন। অর্থ্যাৎ সর্বাধিক ১৭ (সতের) দিনর মধ্যে মধ্যস্থতাকারী নিয়োগ করতে হবে।
* মধ্যস্থতাকারী ৬০ (ষাট) দিনের মধ্যে মধ্যস্থতা সম্পন্ন করবেন, তবে আদালত নিজে কিংবা পক্ষগণের আবেদনে ৩০ (ত্রিশ) দিন সময় বাড়াতে পারে। অর্থ্যাৎ সর্বোচ্চ ৯০ (নব্বই) দিন।
* সমঝোতা প্রতিবেদন প্রাপ্তির ৭ দিনের মধ্যে আদালত আদেশ বা সোলে ডিক্রি জারী করবেন।
* মধ্যস্থতার মাধ্যমে আদালত কোন আদেশ বা সোলে ডিক্রি, আপীল বা রিভিশনযোগ্য নয়।

২. আপীল পর্যায়ে মধ্যস্থতা- ধারা-৮৯গ

আদালত যেকোন আপীলকে মধ্যস্থতার জন্য প্রেরণ করতে পারেন যদি-
* উক্ত আপীলটি আদেশ-৪১ এর অধীন কোন আদি মোকদ্দমার ডিক্রি হয়;
* মূল/আদি মোকদ্দমা প্রতিদ্ব›দ্বীতা করেছেন এমন পক্ষগণের মধ্যে হয়;
* আপীল পর্যায়ের মধ্যস্থতা করার ক্ষেত্রেও মূল মোকদ্দমার মধ্যস্থতার পদ্ধতি অনুসরণযোগ্য।

খ. সালিশী- ধারা- ৮৯খ

* মোকদ্দমার যে কোন পর্যায়ে সালিশীর জন্য আবেদন করা যায়।
* কোন মোকদ্দমা সালিশীর মাধ্যমে নিষ্পত্তি করতে চাইলে, পক্ষগণ আদালতের নিকট সালিশী নিষ্পত্তি করার অভিপ্রায় জানিয়ে মোকদ্দমা প্রত্যাহারের আবেদন জানাবে।
* আদালতের নিকট আবেদন জানালে, আদালত মোকদ্দমা প্রত্যাহারের অনুমতি দিবেন।
* সালিশী আবেদনটি, সালিশী আইন, ২০০১ অনুযায়ী সালিশের চুক্তি হিসাবে গণ্য হবে।
* সালিশী কার্যক্রম যতদুর সম্ভব ‘সালিশী আইন, ২০০১’ অনুসারে পরিচালিত হবে।

Facebook Comments

পাঠকের মতামত: